মুখের লাবণ্য বাড়াতে চান এটি ব্যবহার করুন

মুখের লাবণ্য বাড়াতে বা ত্বকের যে কোনো ধরনের সমস্যার সমাধানের হলুদের ব্যবহার করা হয় পুরাকাল থেকে। হলুদ এন্টিবায়োটিক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। সাধারণ ঠান্ডা লাগলে সঙ্গে গায়ে ব্যাথা হলে দুধের সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যায়।

একটি গুণকারী উদ্ভিদ হল এই হলুদ,এ ছাড়াও অনেক রকম রোগে এর ব্যবহার করা হয়।

মচকানোর ব্যাথা হলে: লক্ষণ — আঘাত লেগে বা কোন কারণে দেহের কোন স্থান মচকে গেলে গা হতে থাকে , কেন করে , ফুলে যায় । চিকিৎসা — ১ চামচ হলুদ বাটা বা ওঁড়ো , ১ চামচ চুন ও ১ চামচ নুন একসঙ্গে মিশিয়ে ২৫০ গ্রাম জল দিয়ে ফোটান , যখন লেইয়ের মত গাঢ় হয়ে যাবে তখন নামিয়ে গরম গরম আক্রান্ত স্থানে লাগান তাহলে ব্যথা – বেদনা ও ফোলা কমবে ।

ক্রিমিতে — ১ চামচ কাচা হলুদের রসের সঙ্গে এক টিপ নুন মিশিয়ে সকালে খালিপেটে ৭ দিন খেলে ক্রিমি নষ্ট হয় ।

আমবাত বা অ্যালার্জীতে — আমবাত ও অ্যালার্জীতে সারা দেহ চুলকোয় , ফুলে ওঠে । দাগ । T চিকিৎসা নিমপাতার সঙ্গে কাঁচা হলুদ ও শুকনাে আমলকী মিশিয়ে একসঙ্গে বেটে তার রস রোজ সকালে ১ চামচ করে খেলে আমবাত ও অ্যালার্জী সারবে । ১ মাস খাবেন ।

স্বরভঙ্গেলার:- স্বর বসে যায় । কথা বলতে কষ্ট হয় । চিকিৎসা — ১ গেলাস গরম জলে ৪ চামচ হলুদের গুঁড়াে ও ২ চামচ চিনি মিশিয়ে সরবৎ করে খেলে গলার স্বর স্বাভাবিক হয় ।

লিভারের দোষে ; লক্ষণ — হজমশক্তি নষ্ট হয় , বিভিন্ন প্রকার কুলক্ষণ দেখা দেয় । চিকিৎসা – ২ চামচ কাঁচা হলুদের রসের সঙ্গে ১ চামচ মধু দিয়ে খেলে লিভারের দোষ থাকে না ।
মুখের লালিত্য ফেরাতে : লক্ষণ — অল্প বয়সে অনেক নারীর মুখের লালিত্য থাকে না । মুখে ভাজ পড়ে ।
চিকিৎসা:- কাচা হলুদের সঙ্গে মসুর ডাল বেটে দুধের সঙ্গে মিশিয়ে মুখে মাখলে মুখের লাবণ্য ফিরে আসে । ১ মাস মাখবেন ।
দেহের উজ্জ্বলতায় — তেলের সঙ্গে হলুদ বাটা মিশিয়ে মেখে স্নান করলে দেহের উত্বলতা বৃদ্ধি হয় এবং রং ফর্সা হয় ।

কাশেম মীর

আমি কাশেম মীর, পেশায় একজন ব্লগার এবং বাংলা জুম এর প্রতিষ্ঠাতা। বাংলা জুম বিনোদন, শিক্ষা, প্রযুক্তি, ছাড়াও অন্যান্য সকল বিষয় বাংলায় আপনাদের কাছে তুলে ধরার চেষ্টা করে।

You may also like...